জন্মান্তর

শুভঙ্কর চট্টোপাধ্যায়


 

 

 

সে এক ঝর্ণার ধারা প্রগলভ

সূর্যের ছটায় ঠিকরে ওঠা মৃদু হাসির রামধনু

ফুটে ওঠে চেহারায় প্রতি দর্শনে

তুমি স্থির তবু নাচে হাসে প্রতিবিম্ব যেন উড়ে যায়

বাস্তব গ্রীষ্মের ভরা দুপুরে সেই চাঁদ ওঠে, মেদুর বাতাস

বয় শিরদাঁড়ায়; কানের লতির ঘাম ঊর্ধ্বমুখে

শিহরণ দেয়, উত্তর-পশ্চিম কোণে জ্বলে ওঠে সঙ্কোচ

 

 

 

স্পর্শে বিদ্যুৎ লাগে, তিনের পাতায় যত

সহজ অঙ্কের সূত্র – হিসেবরা মাথা চুলকায়

অ থেকে চন্দ্রবিন্দু ওলট পালট তবু পরের কথাটি কি !

চলে অন্বেষণ সেই মায়ের পেটের মাঝে

নাড়ির শিকড় তাতে মাধ্যাকর্ষ হীণ ভেসে থাকা

 

 

 

পা দিয়ে অনেকবার ঠেলেছি মা’কে

খারাপ লাগেনি কারো, যুক্তি তর্ক জন্ম পরিচয়…

তবে কি পুনর্জন্ম, পাওয়ার আগেই যত হারাবার

ভয় জন্মায়, এই ক্ষণ সত্য বুঝি এই বেলা

ঘুম ভেঙ্গে যায়

 

 

 

 

দুবার সাইকেল বেল, দুবার ল্যান্ডফোনে রিং

বাকিটা নিস্তব্ধ ফের কথা খুঁজে পায়

যা তুমি বলবে ভাবছ তার সামনে গোঁফওলা ন্যায়

তখন শোলের বিরু, গব্বার ন্যায় অন্যায়; তবে সে

হারিয়েছে জয়

 

 

 

 

 

 

 

জয় না মরলে সেই ইমোশন…

আহা দেবদাস পার্বতী বিয়ে হ’লে তুমি পড়তে কী

তোমার বেহালা চাই, সৌরভ গাঙ্গুলি চাই

তোমার প্যাথোস চাই, বলার মত অনির্বাণ চাই

 

 

 

 

এবার যে গতি চাই, গতি একরোখা

নিজেই ড্রাইভ ক’রে কুরুক্ষেত্রে একা

দুপুরে জ্যোৎস্না হয়

ঘামলে বৃষ্টি হয়

সহজপাঠেরা জোরে ধাক্কায় কঠিন কলম

খাপ থেকে খুলে আসে

তরবারি ভোঁতা মনে হয়

 

 

 

 

সে এক ঝর্ণার ধারা প্রগলভ

সূর্যের ছটায় ঠিকরে ওঠা মৃদু হাসির রামধনু

নিজেই পার্থ হয়, বলে গীতা

শেখে অস্ত্র কীভাবে চালায়

 

 

 

 

পাণ্ডব কৌরব দল মায়ের আঁচলে খুব মায়াময়

নির্দিষ্ট গন্ধ থাকে তাতে

খুব চেনা গাছের ছায়ায়… জাদু এক ।

দুই হাওয়া পেলে এ.সি কোন ছাড়

 

 

 

 

আকাশে দুখানি চাঁদ

হাওয়া বয় দাক্ষিণ এবং উত্তরে

সাধের বাগানে ঘাস নিয়মিত কাটা হয়

নিয়মে জঙ্গলা ঘাস ওঠে

বীজগণিতের খাতা হুহু করে

প্রতিপাদ্য থাকে যথাস্থানে

 

 

 

 

একটি অবুঝ কাক প্রতিপক্ষ ভাবে আর

কাঁচে ঠোকরায়, তীক্ষ্ণ আওয়াজ করে

যেভাবে নিঃসঙ্গ কেউ নিজের ভিতর

ছায়া খোঁজে, নেশা ঘোরে শীর্ষে পৌঁছায়

 

 

 

 

 

আবার ম্যাজিক ঝর্ণা প্রগলভ ধারা

রামধনু রিয়্যালিটি সারিয়্যাল আকাশে ওড়ায়

অনুস্টুপ ছন্দে বলি – ‘মা নিষাদ’

পাপ পুণ্য বিধাতার দায়…

 

স্বখাত সলিলে কবি শিস দিতে দিতে

এই জন্মে চিৎসাঁতারায়

 

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *